কিছু কথা রয়ে গেল মনের অগোচরে!

সবার মনের ভিতরেই কিছুনু না কিছু কষ্ট লুকানো থাকে। হোক সেটা ছোট কিংবা বড়। কিন্তু কিছু কিছু কষ্টের কারণ কারো কাছেই ব্যক্ত করা যায়না।সেই কোষ্টগুলো সবসময় অব্যক্ত রয়ে যায়। মনের অগোচরে জানতে পারে না নিজের মা অথবা জন্মদাতা পিতা। জানতে পারে না খুব কাছের বেস্টফ্রেন্ডটিও। এমন কি সেই প্রিয় মনের মানুষটির কাছেও তা বলা হয় না যার সাথে সবকিছু শেয়ার না করলে পেটের ভাত হজম হয় না। হ্যাঁ কিছু কিছু কষ্ট একান্ত নিজেরই। সেই কষ্টের ভাগ কাউকেই দেয়া যায়না। খুবই ব্যক্তিগত থাকে সেই কষ্ট গুলো। সেই কষ্ট গুলো তখনই খুব বেশি করে আমাদের মনের মাঝে উকি দেয় যখন আমরা রাতের আধারে একাকি নির্জনে কাটাই । বার বার সেই কষ্টের স্মৃতি গুলো তখন মনের মাঝে উকি দিতে থাকে দেখানো যায় না কাউকে। অজান্তেই চোখের কোণে দেখা যায় বিন্দু বিন্দু অশ্রুজল। আবার কখনো কখনো আয়নার সামনে দাড়ালে অশ্রুজল দিয়ে দুগাল ভিজে যায়।আবার যখন নিঝুম রাতে একাকি থাকি ভাবতে ভাবতে রাতটি পেরিয়ে যায়। সবার অগোচরেই থেকে যায় তা। কেউ দেখে না সেই চোখের পানি। সবাই যে নিজেকে নিয়েই ব্যস্ত। সবাই ঘুমে মশগুল পরের দিনে একটা সুন্দর সকাল উপভোগের জন্য। কিন্তু অগোছালো আমার কষ্ট নিয়ে বেচে থাকা মানুষ শুধু অভিনয় করে দিন পার করে দেই।দিনের আলোয় হেসে খেলে মজ মস্তি করে বন্ধুদের সাথে আড্ডায় মেতে থাকি।আমাদের আনন্দ দেখে কেউ বুঝতে পারবে না যে আমরা রাতের বেলায় চোখের জল ফেলি। ভেতর থেকে কত খানি খানি সে টা শুধু আমিই জানি। হঠাৎ মন খারাপ করে বসে থাকলে হয়তো কোনো বন্ধুর নজরে ধরা পরি। কাছে এসে যদি জিজ্ঞেস করে, কি রে কি হয়েছে,মন খারাপ নাকি? তখন উত্তর দেয়ার মতো কিছুই থাকে না। তারপরও বলি, আমি ঠিক আছি। কেউ যদি কখনো জিজ্ঞেস করে ,কেমন আছিস? তখন সেই চিরন্তন মিথ্যা বাক্যটাই উচ্চারণ করি, হ্যাঁ অনেক ভালো অনেক সুখে আছি। হয়তো খুব বেশি ভালো নেই তবে অনেকের চেয়ে তো অনেক ভালো আছি।অনেকে আবার কষ্ট লাঘব করারর জন্য বিভিন্ন রকম নেশা করে। খুব বেশি কষ্ট পাওয়া মানুষ গুলো শুধু বেচে থাকার অভিনয় করতে থাকে। মনের মৃত্যু হয়ে গেলে কি হবে, দেহ যে এখনো জীবিত। তাই মরে গিয়েও বেচে থাকার অভিনয় করতে হয় । খুব বেশি ডিপ্রেশনকে মেনে নিতে না পেরে মরে যেতে চায় বার বার কিন্তু পারেনা। সে মরে গেলে তো চলবে না। তার জীবন টা যে কতজনের সাথে জড়িয়ে আছে। মা বাবা চেয়ে আছে তার দিকে ছোট ভাইবোন গুলো তো ছাড়তে চাইবে না। তাই কষ্টগুলো মনের মাঝে পুষে রেখেই নিজেকে অভিনয়ে ব্যস্ত রাখতে হয় । নিজের জন্য না হলেও অন্যের জন্য অন্তত বেচে থাকতে হবে। সবাই যে তার দিকে তাকিয়ে আছে। তাই নিজের কষ্টগুলো মনের মধ্যেই চেপে রেখে অন্যের মুখে হাসি ফুটাবার জন্য চলতে হয় ।
কখনো কখনো মনে হয়, না এভাবে আর নয়। নিজেকে বদলাতে হবে। জীবনকে আবার নতুন করে সাজাতে হবে। সব কষ্ট ধুয়ে ফেলার চেষ্টা করতে হবে। অতীতকে ভুলে যেতে আবার নতুনভাবে জীবনকে রাঙ্গাতে হবে । একসময় অনেক পরিবর্তন হয়ে যায় সেই মানুষ গুলো। ছোট ছোট কস্ট গুলোকে তখন আর কস্ট মনে হয়না। এর পর ত্যাগ করতে হয় শেষ নিশ্বাস টুকু।

Advertisements

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s